ঢাকা,  রোববার
১৪ এপ্রিল ২০২৪

The Daily Messenger

বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলা ও দখল চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন

বরগুনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬:৩৫, ২ মার্চ ২০২৪

বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলা ও দখল চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ছবি : মেসেঞ্জার

বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলা দখল চেষ্টার প্রতিবাদে এবং মামলায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার (২ মার্চ) বেলা ১১ টায় বরগুনা প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

মানববন্ধনে জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম, প্রিন্ট মিডিয়া সাংবাদিক ফোরাম, বরগুনা রিপোর্টার্স ইউনিটি, অনলাইন এক্টিভিটস ফোরাম, বরগুনা সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন), মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আইনজীবী সমিতিসহ বরগুনার বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

এসময় বক্তারা ঐতিহ্যবাহী বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলা চালিয়ে দখল চেষ্টা এবং ফেসবুকে অসত্য তথ্য দিয়ে অপপ্রচারের নিন্দা জানান এবং দ্রুত আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান।

মানববন্ধনে বরগুনা পৌরসভার নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আমিনুল ইসলাম স্বপন বলেন, বরগুনা প্রেসক্লাবে পরিচ্ছন্ন মেধাবী সংবাদকর্মীরা সদস্যপদ পেয়ে থাকেন। প্রেসক্লাবের এমন সম্মানিত সদস্যদের নিয়ে ফেসবুকে মুশফিক আরিফ যে ধরনের কথা বলেন তা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। এই সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে আপনারা সবাই পদক্ষেপ নেন। অন্যথায় আমরা বরগুনার সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দরা পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হব।

বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির প্রতিনিধি অ্যাডভোকেট মোঃ মাইনুল হোসেন বলেন, বরগুনা প্রেসক্লাবের নিন্দনীয় হামলার ঘটনা শুধু সাংবাদিক সমাজের জন্য নয়, শুধু প্রেসক্লাবের জন্য নয়। পুরো বরগুনাবাসীর জন্য এটি একটি কলঙ্কিত ইতিহাস।

তিনি আরো বলেন, ঐতিহ্যবাহী বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলার মতো এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনার কথা আমি আর কোনদিন শুনিনি। যারা এই দুঃসাহস দেখিয়েছে, যারা এই ঘটনার সাথে জড়িত, অতি দ্রুত তাদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার জন্য আমি বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

যদি এটা করা না হয়, তাহলে বরগুনা কলঙ্কিত হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ঐতিহ্যবাহী বরগুনা প্রেসক্লাবের সুনাম সুখ্যাতি নষ্ট হবে। এটা আমরা কামনা করি না। তাই আমরা চাই আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবী জানাই।

বরগুনা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক চ্যানেল টুয়েন্টিফোর এবং দৈনিক সমকালের বরগুনা প্রতিনিধি আবু জাফর মোঃ সালেহ বলেন, প্রেসক্লাবে ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনায় আমরা একটি মামলা করেছি। আদালত পিবিআইকে মামলার তদন্ত করার দায়িত্ব দিয়েছেন। আমরা একটি স্বচ্ছ তদন্তের মাধ্যমে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

দৈনিক যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার বাংলাদেশ বেতারের বরগুনা প্রতিনিধি অ্যাডভোকেট মজিবুল হক কিসলু বলেন, ঐতিহ্যবাহী বরগুনা প্রেসক্লাব নিয়ে যারা ষড়যন্ত্র করেছে তাদেরকে ধিক্কার জানাই প্রেসক্লাবের একটি গঠনতন্ত্র আছে। সেই গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রেসক্লাব পরিচালিত হয়।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বরগুনা প্রেসক্লাবে যে ন্যাক্কারজনক হামলা হয়েছে তাতে পুরো বাংলাদেশের মানুষ স্তম্ভিত। একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠনে যদি কেউ হামলা চালিয়ে দখল করার চেষ্টা করে এর থেকে ঘৃণিত কাজ আর কিছু হতে পারে না। ঘটনা জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানাই।

বরগুনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাফর হোসেন হাওলাদার বলেন, মানববন্ধনের মত একটি শান্তিপূর্ণ প্রোগ্রামের মাধ্যমে আমরা আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাই। আইন অনুযায়ী পুলিশ আসামি গ্রেপ্তার না করলে আমরা এর থেকেও কঠোর কর্মসূচি দেব। প্রয়োজনে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাব। তবুও বরগুনা প্রেসক্লাবের সম্মান বিন্দুমাত্র ক্ষুণ্ণ হতে দেবো না আমরা। হামলা চালিয়ে আমাদের সহকর্মীদের আহত করা হয়েছে। প্রেসক্লাবের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা হয়েছে। আমরা আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাই।

বরগুনা প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তফা কাদের বলেন, অপসংবাদিকতা রোধে যখন বরগুনা প্রেসক্লাব সোচ্চার, ঠিক সেই মুহূর্তে বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলা হয়েছে। ঘটনায় প্রেসক্লাবের যেসব সদস্য আহত হয়েছেন আমি তাদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করছি।

তিনি আরো বলেন, সকলের আন্তরিক সহযোগিতায় বরগুনা প্রেসক্লাব আমরা দখলের হাত থেকে রক্ষা করতে পেরেছি। তাই আমরা সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমরা আমাদের একটাই দাবি আমরা অতি দ্রুত আসামিদের গ্রেপ্তার চাই।

বরগুনা প্রেসক্লাবের অধিকাংশ সদস্য ভারতে অবস্থানরত অবস্থায় গত ১৯ ফেব্রুয়ারি এক ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে বরগুনা প্রেসক্লাবে হামলা চালিয়ে দখলের চেষ্টা চালায় একটি স্বার্থান্বেষী মহল।

ঘটনায় আহত হন বরগুনা প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এনটিভির স্টাফ রিপোর্টার সোহেল হাফিজ, যমুনা টেলিভিশনের রিপোর্টার ফেরদৌস খান ইমন এবং সময় টেলিভিশনের রিপোর্টার সাইফুল ইসলাম নিরাজসহ জন সংবাদকর্মী।

পরে ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৫০ জনকে অভিযুক্ত করে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করে বরগুনা প্রেসক্লাব।

মেসেঞ্জার/হিমাদ্রি/আপেল

dwl
×
Nagad