ঢাকা,  শনিবার
২০ এপ্রিল ২০২৪

The Daily Messenger

গোপনাঙ্গে আঘাত করে পৌরসভার কর্মচারীকে হত্যা, আটক ৫

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৩:০২, ৫ মার্চ ২০২৪

গোপনাঙ্গে আঘাত করে পৌরসভার কর্মচারীকে হত্যা, আটক ৫

মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল, ইনসেটে নিহত সাইফুল ছবি: মেসেঞ্জার।

জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মুন্সিগঞ্জ সদরে গোপনাঙ্গে (অণ্ডকোষ) আঘাত করে ও পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (৪ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহরের মাঠাপাড়া এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় রাতেই বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে মূল দুই অভিযুক্ত স্থানীয় ডিস ব্যবসায়ী হুমায়ূন হোসেন ও তার ভাই মোহাম্মদ সোহেলসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত ব্যক্তির নাম মো. উজ্জ্বল (৪২)। তিনি ওই এলাকার শাহজাহান মোল্লার ছেলে। উজ্জ্বল মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী হিসেবে কর্মরত ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নিহতের স্বজন ও স্থানীয়রা জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল দুই পক্ষের মধ্যে। সেই বিরোধের দ্বন্দ্বে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মুন্সিগঞ্জ শহরের দক্ষিণ কোটগাঁও এলাকার স্থানীয় ডিস ব্যবসায়ী হুমায়ুন হোসেন ও তার ছোট ভাই সোহেলের নেতৃত্বে ১০-১২ জন মিলে উজ্জ্বলের মাঠাপাড়ার বসত বাড়িতে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায়। 

এ সময় জমি কাগজপত্র ও মালিকানা নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে মারধর করে মামলা তুলে নিতে চাপ প্রয়োগ করা হয় নিহত উজ্জ্বলকে, এতে অস্বীকৃতি জানালে অভিযুক্ত হুমায়ুন ও সোহেলসহ তাদের লোকজন বেধড়ক মারধর করে উজ্জ্বলকে গুরুতর আহত অবস্থায় ফেলে রেখে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা রাতেই অচেতন অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. ফেরদৌস হাসান জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। তবে নিহতের শরীরে গুরুতর আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। তবে মারধরের সময় নিহতের অণ্ডকোষে আঘাত লাগার কারণে মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মুন্সিগঞ্জ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থান্ডার খায়রুল হাসান জানান, এ ঘটনার মূল অভিযুক্ত দুই ভাই হুমায়ূন ও সোহেলসহ পাঁচজনকে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আটক করেছে পুলিশ। নিহতের মরদেহের ময়নাতদন্ত হবে। পরিবারের অভিযোগ অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত বাকি আসামিদের আটকের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। আইনগত প্রক্রিয়া শেষে স্বজনদের কাছে নিহতের মরদেহ হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন।

মেসেঞ্জার/ শুভ/শাহেদ

dwl
×
Nagad