ঢাকা,  সোমবার
০৪ মার্চ ২০২৪

The Daily Messenger

শিরোনাম:

* মানুষের দোরগোড়ায় স্মার্ট ডাক সেবা পৌঁছে দিতে সরকার বদ্ধপরিকর : পলক * কৌশলে কখনো কখনো পিছু হটতে হয় : ফারুক * নাটোরে অ্যাম্বুলেন্সে মিললো গাঁজা ফেনসিডিল * বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর সাথে ভারতের হাইকমিশনারের সৌজন্য সাক্ষাৎ * চট্টগ্রামে সুগার মিলে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ২০ ইউনিট * পাকিস্তানে প্রবল বৃষ্টি ও তুষারপাতে ২৭ জনের মৃত্যু * ধানমন্ডির টুইন পিক টাওয়ারের ১২ রেস্তোরাঁ সিলগালা * অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে সাইনবোর্ড টানানোর নির্দেশ হাইকোর্টের * দেশের অর্থনীতি নিয়ে মিথ্যা প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে : অর্থমন্ত্রী * মালয়েশিয়ায় ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ৩ বাংলাদেশি * আফ্রিকার বুরকিনা ফাসোতে হামলা, নিহত ১৭০ * ইভ্যালির রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা * ২০৪১ সালের মধ্যে বিজিবি হবে বিশ্বমানের স্মার্ট সীমান্ত বাহিনী : প্রধানমন্ত্রী * বেইলি রোডে আগুন : উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন হাইকোর্টের

​​​​​​​আলীকদমে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষ সংকটে তিন বছর ধরে পাঠদান ব্যাহত

লামা-আলীকদম (বান্দরবান) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২০:৪০, ২১ নভেম্বর ২০২৩

​​​​​​​আলীকদমে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষ সংকটে তিন বছর ধরে পাঠদান ব্যাহত

লামা (বান্দরবান) আলীকদম আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টির শ্রেণিকক্ষ সংকট দীর্ঘদিনের। ছবি: ডেইলি মেসেঞ্জার

আলীকদম উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিতআলীকদম আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩১৫ জন। তবে শিক্ষার্থীর তুলনায় বিদ্যালয়টিতে নেই পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ। আর সেই কারণে বিদ্যালয়ে এসে শিক্ষার্থীদের দাঁড়িয়ে বা গাদাগাদি করে ক্লাস করতে হচ্ছে। এক শিফটের স্কুল হওয়ায় পাঠদানের জন্য প্রাক-প্রাথমিকসহ ৬টি শ্রেণিকক্ষ প্রয়োজন। কিন্তু বিদ্যালয়ে ব্যবহারযোগ্য শ্রেণিকক্ষ রয়েছে ৫টি। বাধ্য হয়ে পাশের হলরুম ব্যবহার করতে হচ্ছে। উপজেলার সদরের একমাত্র মডেল স্কুলটির শ্রেণিকক্ষ সংকটের বিষয়টি কেউ মেনে নিতে পারছে না। এই বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্কুলের অভিভাবক, পরিচালনা কমিটি এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

আলীকদম আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এসএমসি কমিটির সভাপতি সমর রঞ্জন বড়ুয়া বলেন, ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে পিডিবি- এর আওতায় নতুন ভবন হওয়ার কথা বলে স্কুলের মূল ভবন সংযুক্ত টয়লেট ভেঙে ফেলা হয়। সেই থেকে নানা জটিলতায় প্রায় তিন বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত নতুন ভবন হয়নি। ছাড়া বিদ্যালয়ের দ্বিতল বিশিষ্ট ভবনের পানির লাইনে ছিদ্র থাকায় একটি শ্রেণিকক্ষ ব্যবহার করা যাচ্ছেনা। উপজেলার প্রাণকেন্দ্রের একমাত্র মডেল স্কুলটির শ্রেণিকক্ষ সংকট, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

তিনি আরও বলেন, ছাড়া এই স্কুলে দূর-দূরান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীদের জন্য তৈরি আবাসিক ছাত্রাবাসটির ভবন জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। ছাত্রাবাসে ৭৫ জন শিক্ষার্থী থাকে। যেকোনো সময় ভবন ধসে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। শ্রেণিকক্ষ বর্ধিত করতে নতুন ভবন নির্মাণ আবাসিক শিক্ষার্থীদের থাকা ছাত্রাবাসটি মেরামত বা নতুন ভবন করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আপ্রুমং মার্মা বলেন, ১৯৬৫ সালে একর ৫০ শতক জায়গা নিয়ে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। দীর্ঘদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে ভালো ফলাফল করে বিদ্যালয়টি উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষায় সুনাম অর্জন করেছে। এই বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার মান ভালো হওয়ায় পুরো উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ছেলে-মেয়েরা এই স্কুলে পড়তে ভিড় জমায়। কিন্তু নানা সমস্যার কারণে মানসম্মত পাঠদান করা যাচ্ছে না। এতে করে স্কুলটি অর্জিত সুনাম হারাতে বসেছে।

স্কুলের সহকারী শিক্ষক মো. নুরুল হুদা ভূঁইয়া দ্য ডেইলি মেসেঞ্জারকে বলেন, স্কুলের পয়ঃনিষ্কাশন সমস্যা রয়েছে। মূল ভবনের সঙ্গে একটি টয়লেট ভেঙে ফেলা হয়েছিল। এখন শতশত শিক্ষার্থী জন্য একটি টয়লেট যথেষ্ট নয়। যা আছে তাও জরাজীর্ণ। সংষ্কার জরুরি। ছাড়া স্কুলে পানির সমস্যা আছে। বর্তমান টিউবয়েল থেকে শুষ্ক মৌসুমে পানি পাওয়া যায় না। যে পানি পাওয়া যায়, তা পান করার উপযোগী নয়।

বিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা জানান, শ্রেণিকক্ষ বসার পর্যাপ্ত টেবিল না থাকায় দাঁড়িয়ে ক্লাস করতে হচ্ছে। আবার কোনো কোনো কক্ষে গাদাগাদি করে বসে ক্লাস করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। ফলে তাদের পড়াশোনা শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে মনযোগের বিঘ্ন ঘটে। সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট দফতরের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

অভিভাবকরা জানান, বিদ্যালয়টিতে লেখাপড়ার মান ভালো। কিন্তু শ্রেণিকক্ষ আসবাবপত্র সংকটে দীর্ঘদিন ধরে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। প্রতিটি ক্লাস রুমে শিক্ষার্থীদের গাদাগাদি করে বসতে হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা একটু দেরিতে ক্লাসে গেলে বসার জায়গা পায়না। অনেকে হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরে আসে। সমস্যা সমাধানে বিদ্যালয়টিতে দ্রুত একটি নতুন ভবন বরাদ্দ প্রয়োজন।

সরজমিনে স্কুলে গেলে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের প্রবেশপথে টমটম স্টেশন করা হয়েছে। এতে করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দুর্ঘটনার ঝুঁকি রয়েছে। বিগত সময়ে বেশ কয়েকবার দুর্ঘটনা ঘটলেও সমস্যা সমাধানে কেউ এগিয়ে আসেনি। স্কুলের রেকর্ড মতে একর ৫০ শতক জায়গা থাকলেও কিছু জায়গা বেদখল হয়ে গেছে। স্কুলের বেশকিছু বেঞ্চ জোড়াতালি দিয়ে ব্যবহার করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের অনুপাতে আসবাবপত্র অপ্রতুল। 

আলীকদম উপজেলা শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মংক্যনু মার্মা বলেন, আমি সদ্য যোগদান করেছি। এসব সমস্যা সমাধানে অচিরেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বুধবার আলীকদমে বান্দরবান জেলা শিক্ষা অফিসার আসার কথা রয়েছে। আমি সমস্যা গুলো নিয়ে কথা বলব।

বিষয়ে আলীকদম উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাবের মো. সোয়াইব বলেন, নতুন ভবন করার বিষয়ে এলজিইডি আলীকদম এর সঙ্গে কয়েকবার কথা হয়েছে। দ্রুত নতুন ভবন নির্মাণ পূর্বক শ্রেণিকক্ষ সংকট নিরসনে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

মেসেঞ্জার/রফিক/আল আমিন

×
Islamic Merchant