ঢাকা,  সোমবার
২৪ জুন ২০২৪

The Daily Messenger

রুমায় সেনা অভিযানে ৩ কেএনএফ সদস্য নিহত

বান্দরবান প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৪:৫০, ১৯ মে ২০২৪

আপডেট: ১৯:৫৩, ১৯ মে ২০২৪

রুমায় সেনা অভিযানে ৩ কেএনএফ সদস্য নিহত

ছবি: সংগৃহীত

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি ও রুমা উপজেলা সীমান্তে সেনাবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) তিন সদস্য নিহত হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে দেশীয় অস্ত্র, কার্তুজ, সামরিক পোশাক ও অন্য সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ রোববার দুপুরে জেলার রোয়াংছড়ি রৌনিনপাড়ার দেবাছড়া ও রুমার পাইক্ষ্যংপাড়ার সীমান্তবর্তী এলাকার গভীর অরণ্যে কেএনএফের আস্তানার খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালান সেনাবাহিনীর সদস্যরা। এ সময় কেএনএফ সন্ত্রাসীরা সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে সেনাসদস্যরাও পাল্টা গুলি করেন।

এতে কেএনএফের তিন সদস্য নিহত হয়। তারা জলপাই রঙের পোশাক পরে ছিল। পরে সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে বাকি সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে তিনটি দেশি বন্দুক, কার্তুজ, সামরিক পোশাক ও অন্য সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।

এদিকে আজ বিকেলে কেএনএফের মিডিয়া উইংয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্নেল সলোমন তিনজন নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে এক বিবৃতিতে দাবি করেন নিহতরা হলেন রুমার রৌনিনপাড়ার এডিথাং বম (২৪), ফিয়াংপিদ্যেংপাড়ার রুয়ালসাংনুয়াম বম (২৩) ও একই পাড়ার রুয়ালমিনলিয়ান বম (২০)। তারা তিনজন চট্টগ্রাম ও বান্দরবানের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র।

অন্যদিকে এ ঘটনার পর দুই উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় সেনাবাহিনী তল্লাশি চালাচ্ছে। স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ার কারণে সেখানে নিরাপত্তা বাহিনীর টহল জোরদার করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আজ রোববার সন্ধ্যা ৬টার দিকে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রায়হান কাজেমী আজকের পত্রিকার এই প্রতিবেদককে বলেন, তিনটি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ রোয়াংছড়ি থেকে বান্দরবান হাসপাতালে নিয়ে আসছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারকে লাশ বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ২ ও ৩ এপ্রিল বান্দরবান রুমা ও থানচি উপজেলায় ব্যাংক ডাকাতি, ১৪টি অস্ত্র লুট, ব্যাংক ম্যানেজার অপহরণ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর হামলার ঘটনায় এ পর্যন্ত ৮৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মেসেঞ্জার/ফামিমা/হাওলাদার

Advertisement