ঢাকা,  বৃহস্পতিবার
২৫ এপ্রিল ২০২৪

The Daily Messenger

৫ থেকে ৩০ হাজার টাকায় রোহিঙ্গা হয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশি

মেসেঞ্জার অনলাইন

প্রকাশিত: ২০:০০, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

আপডেট: ২০:১১, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

৫ থেকে ৩০ হাজার টাকায় রোহিঙ্গা হয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশি

ডিবি প্রধান হারুন অর রশীদ। ছবি : সংগৃহীত

ডিবির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেছেন, পাঁচ থেকে ৩০ হাজার টাকায় ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ও জন্মনিবন্ধন সনদ তৈরি করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মানুষ হয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের নাগরিক। টাকার বিনিময়ে এসব সনদ করে দিচ্ছে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের কম্পিউটার অপারেটররা। এসব কর্মকাণ্ড পরিচালনায় গড়ে উঠেছে চক্র। চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম (দক্ষিণ) ইউনিট।

সোমবার (১৯ ফ্রেরুয়ারি) রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিবির প্রধান পুলিশ।

গ্রেপ্তারেরা হলেন—দিনাজপুরের বিরল পৌরসভার কম্পিউটার অপারেটর মো. আব্দুর রশিদ, বিরলের রাণীপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের কম্পিউটার অপারেটর সোহেল চন্দ্র, মো. শহিদুল ইসলাম মুন্না, মো. রাসেল খান ও মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

ডিবি প্রধান বলেন, রশিদ ও সোহেল পৌরসভার মেয়র, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সচিবের আইডি ব্যবহার করে জাতীয় এনআইডি সার্ভার ও জন্ম নিবন্ধনের সার্ভারে প্রবেশ করে এসব করতেন। তাঁদের কাছে গ্রাহক এনে দিতেন গ্রেপ্তার বাকি তিনজন।

এই চক্রটি ভোটার আইডি কার্ড, জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরির কথা বলে অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে গ্রাহক আকৃষ্ট করত। নিয়মিত সাইবার টহলের সময়ে এটি নজরে আসে সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম দক্ষিণ ইউনিটের। বিজ্ঞাপনের সূত্র ধরে অনুসন্ধানে নামে এই ইউনিট। একপর্যায়ে এই চক্রটির সন্ধান পায়।

ইউনিটটির অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার মো. সাইফুর রহমান আজাদ বলেন, এই চক্রের মূল হোতা মো. আব্দুর রশিদ দিনাজপুরের বিরল পৌরসভার কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে কর্মরত এবং সোহেল চন্দ্র বিরলের ১০ নং রাণীপুকুর ইউনিয়ন পরিষদে কম্পিউটার অপারেটরের কাজ করেন। তাঁরা দুজন বাকিদের সহায়তায় কক্সবাজারের রোহিঙ্গা জনগণকে বিরলের অধিবাসী দেখিয়ে জন্ম নিবন্ধন সনদ বানিয়ে দিত। এ জন্য গ্রেপ্তারেরা কাজের ধরন অনুযায়ী টাকা পেত।

মেসেঞ্জার/রকি

dwl
×
Nagad