ঢাকা,  বৃহস্পতিবার
২৫ জুলাই ২০২৪

The Daily Messenger

দেশের সব জেলায় প্রবাসী সহায়তা ডেস্ক চান ইউএই প্রবাসীরা

ইউএই প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৮:১১, ২৯ মে ২০২৪

দেশের সব জেলায় প্রবাসী সহায়তা ডেস্ক চান ইউএই প্রবাসীরা

ছবি : মেসেঞ্জার

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা প্রবাসী বাংলাদেশি তাদের পরিবারের সুরক্ষা যে কোন আইনি সহায়তা নিশ্চিত করতে "প্রবাসী সহায়তা ডেস্ক" নামে একটি বিশেষ ডেস্ক চালু করে বাংলাদেশ পুলিশের চট্টগ্রাম ব্যুরো।

চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলার ন্যায় দেশের সকল জেলায় পুর্নাঙ্গ কার্যকর 'প্রবাসী সহায়তা ডেস্ক' চালুর আহ্বান করেন সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী বাংলাদেশিরা। সেই সাথে ডেস্কের প্রচার-প্রসারে বাংলাদেশ মিশন প্রবাসী সংগঠকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সোমবার (২৭ মে) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ সমিতি, শারজাহ এর কার্যালয়ে মুক্ত আলোচনায় অংশনেন বাংলাদেশ কমিউনিটির সিনিয়র ব্যাক্তিবর্গ প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

এসময় বাংলাদেশ সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি ইয়াকুব সুনিকের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ প্রেসক্লাব ইউএই' প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাংবাদিক শিবলী আল সাদিকের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির আলোচনায় অংশনেন বাংলাদেশ কনস্যুলেট দুবাই উত্তর আমিরাত কনসাল জেনারেল বি এম জামাল হোসেন।

এতে মূখ্য আলোচক ছিলেন প্রবাসী বিষয়ক কনসালটেন্ট দেশের সিনিয়র সাংবাদিক এজাজ মাহমুদ।

মুক্ত আলোচনায় অংশনিয়ে প্রবাসীদের বিভিন্ন দাবি সমস্যা সমাধানের আহবান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন প্রবাসী ব্যাবসায়ী সিআইপি কে আজাদ, আবুল কাসেম,জসীম উদ্দিন, কমিউনিটি ব্যাক্তিত্ব ইসমাইল গনী চৌধুরী, মহিউদ্দিন জামান, কামাল হোসেন সুমন, শাফায়াত উল্লাহ, মকবুল আহমেদ অন্যান্যরা।

মূখ্য আলোচক সাংবাদিক এজাজ মাহমুদ 'প্রবাসী সহায়তা ডেস্ক' এর বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি নুরে আলম মিনা রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের পাশে থাকার মহান ব্রত নিয়ে মাঠ পর্যায়ে 'প্রবাসী সহায়তা ডেস্ক' প্রবর্তন করেন এবং দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন প্রকল্পটি নিয়ে।

এরই মধ্যে অসংখ্য প্রবাসী সহায়তা ডেস্কের মাধ্যমে উপকৃত হয়েছেন। তবে এখনো সর্বস্তরের প্রবাসীর কাছে এই সহায়তা ডেস্কের কার্যক্রম সেবা প্রসঙ্গে প্রকৃত কোন ধারণা নেই।

তিনি ডেস্কের প্রচার-প্রসারে প্রবাসী বাংলাদেশি সংগঠকদের এগিয়ে আসার আহবান জানান, যাতে সর্বস্তরের প্রবাসী ডেস্কের সুফল পেতে পারেন।

এছাড়াও বাংলাদেশ পুলিশের মতো জেলা পর্যায়ের পাসপোর্ট অফিস, বিআরটিএ, সিডিএসহ সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠানগুলোতেও প্রবাসী সহায়তা ডেস্কের চালুর উপর গুরুত্বারোপ করেন সাংবাদিক এজাজ মাহমুদ।

মুক্ত আলোচনায় আমিরাত প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলেন, জীবিকার তাগিদে দূর প্রবাসে থাকলেও প্রবাসীরা প্রতিনিয়ত উৎকণ্ঠায় থাকে পরিবার-পরিজনের নিরাপত্তা নিয়ে। জায়গা জমি দখল, সন্ত্রাসীদের নানা ধরনের উৎপাত, চাঁদাবাজী পারিবারিক কলহসহ বিভিন্ন ঘটনায় দূর দেশে থেকে কিছু করতে না পেরে প্রবাসীরা অনেকটা নিরুপায় হয়ে পড়ে।

সেক্ষেত্রে দেশের জেলায় জেলায় সহায়তা ডেস্কের কার্যক্রম সেবা নিয়ে সরকারকে আরো জোরালো ভুমিকা রাখতে হবে।

প্রবাসীরা আরও বলেন, সহায়তা ডেস্কের কার্যক্রম সেবা বাড়াতে এই প্রকল্পটি কার্যকর করে তুলতে হবে। সেই সাথে বাংলাদেশ মিশনকেও এগিয়ে আসাতে হবে।

প্রধান অতিথি আলোচনায় বি এম জামাল হোসেন বলেন, প্রবাসীদের সহয়তা করতে আমরা সব সময় অঙ্গিকার বদ্ধ। তবে সে জন্য বিচার প্রার্থীদের প্রশাসনের প্রতি আস্তা রাখতে হবে।

প্রবাসী সহয়তা ডেস্কের কনসেপ্টটি সময় উপযোগী একটি প্রকল্প। আমি মনে করি প্রবাসীদের সহয়তা করতে পুলিশ প্রশাসন এই কনসেপ্ট নিয়ে এগিয়ে যেতে পারবে। প্রবাসীদের সার্বিকভাবে সহয়তা করতে পারবে। তিনি জন্য দুবাই মিশন থেকে সর্ব প্রকার সহযোগিতা করতে প্রস্তুত বলে উল্লেখ করেন।

মেসেঞ্জার/রিদয়/আপেল