ঢাকা,  রোববার
১৯ মে ২০২৪

The Daily Messenger

ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতার প্রতীক ইসতিকলাল মসজিদ

মেসেঞ্জার অনলাইন

প্রকাশিত: ২০:২২, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতার প্রতীক ইসতিকলাল মসজিদ

ছবি: সংগৃহীত

ইন্দোনেশিয়া ১৯৪৫ সালে নেদারল্যান্ডস থেকে স্বাধীনতা লাভ করে, এই অর্জনের কৃতিত্বস্বরূপ দেশটি ইসতিকলাল মসজিদ নামে স্বাধীনতা মসজিদ তৈরি করে। আরবিতে ইসতিকলাল এর বাংলা অর্থ স্বাধীনতা।

এই মসজিদ স্থাপনের প্রথম প্রস্তাবটি করেন ইন্দোনেশিয়ার প্রথম ধর্মমন্ত্রী ওয়াহিদ হাশিম আনোয়ার চক্রমেনিতো। এই দুজন ১৯৫৩ সালে ইন্দোনেশিয়ার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট তথা ইন্দোনেশিয়ার প্রথম প্রেসিডেন্ট সুকর্ণকে ইসতিকলাল মসজিদ স্থাপনের প্রস্তাব করেন।

১৯৭৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ইন্দোনেশিয়ার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সুহাত্রো ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় মসজিদ হিসেবে ইস্তিকলাল মসজিদের উদ্বোধন করেন। ইন্দোনেশিয়ার বিখ্যাত চার্চজাকার্তা ক্যাথেড্রাল’-এর  কাছে মসজিদ নির্মিত হয়।

 ২০১৩ সালে এই মসজিদটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বৃহৎ মসজিদ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। মসজিদটিতে একই সঙ্গে লাখ ২০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন।

 প্রতিদিন দেশ-বিদেশ থেকে অসংখ্য পর্যটক স্বাধীনতার প্রতীক ইসতিকলাল মসজিদের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসেন।

মসজিদটি এক অসাধারণ নির্মাণশৈলীতে নির্মিত। মসজিদটিতে ৭টি প্রবেশপথ রয়েছে, যা জান্নাতের ৭টি প্রবেশের দরজাকে নির্দেশ করে। মসজিদের গম্বুজের ব্যাস মিটার, মিটার ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতার মাস আগস্ট মাস তথা বছরের ৮ম মাসকে বোঝানো হয়েছে। মসজিদের কিবলার দেয়াল তথা প্রধান দেয়াল আল্লাহ, মুহাম্মদ আর সুরা ত্বহার ১৪ নম্বর আয়াতের ক্যালিওগ্রাফি দ্বারা সুশোভিত।

মেসেঞ্জার/মুমু

dwl

Notice: Undefined variable: sAddThis in /mnt/volume_sgp1_07/tp4l1yw3zz9u/public_html/bangla/details.php on line 768