ঢাকা,  মঙ্গলবার
১৬ এপ্রিল ২০২৪

The Daily Messenger

দেড়শ বছরে পাকিস্তানের অর্থনীতিকে ছাড়িয়ে গেছে টাটা গোষ্ঠী

মেসেঞ্জার অনলাইন

প্রকাশিত: ১৬:৪৬, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

আপডেট: ১৬:৪৮, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

দেড়শ বছরে পাকিস্তানের অর্থনীতিকে ছাড়িয়ে গেছে টাটা গোষ্ঠী

ছবি : সংগৃহীত

টাটা গ্রুপ অব কোম্পানির মোট সম্পদের পরিমাণ ৩৬ হাজার ৫০০ কোটি ডলারে পৌঁছেছে বলে সম্প্রতি খবর প্রকাশিত হয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমে। সেই হিসাবে টাটা গোষ্ঠীর মোট সম্পত্তি পাকিস্তানের ‘গ্রস ডোমেস্টিক প্রোডাক্ট’ বা জিডিপির চেয়েও বেশি।

 চা থেকে শুরু করে জাগুয়ার ল্যান্ড রোভার গাড়ি এবং লবণ তৈরি থেকে বিমান পরিষেবা বা হোটেল গ্রুপ চালানো, জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে টাটা গোষ্ঠীর প্রভাব দৃশ্যমান। এই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে টাটা গ্রুপের মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন ছিল আনুমানিক ৩৬ হাজার ৫০০ কোটি ডলার।

ইন্টারন্যাশানাল মানিটারি ফান্ডের (আইএমএফ) অনুমান অনুযায়ী পাকিস্তানের জিডিপি ৩৪ হাজার ১০০ কোটি ডলার। অর্থাৎ, পাকিস্তানের জিডিপিকে ছাড়িয়ে গেছে টাটা গোষ্ঠীর মোট সম্পদ।শুধুমাত্র টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিসের সম্পদ হলো ১৭ হাজার কোটি মার্কিন ডলার। এর মোট সম্পদ পাকিস্তানের অর্থনীতির প্রায় অর্ধেক।

টাটার পথ চলা শুরু

লোনাভালা বাঁধের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার সময় ৮ ফ্রেব্রুয়ারি ১৯১১ সালে টাটা গ্রুপের প্রধান স্যার দোরাবজি টাটা তার বাবা জামশেদজি টাটার চিন্তা-ভাবনার কথা বলেছিলেন। দোরাবজি টাটা ১৮৬৮ সালে এই কোম্পানির ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন।

এই শিল্প গোষ্ঠীর অধীনে ১০টি ভিন্ন ভিন্ন খাতে ব্যবসা করে এরকম ৩০টি কোম্পানি রয়েছে।

কোম্পানির ওয়েবসাইটে তাদের মিশন অনুযায়ী- পৃথিবীর বিভিন্ন সম্প্রদায়ের জীবনযাত্রার মান উন্নত করার উদ্দেশ্যে একাধিক কোম্পানি শুরু করেছে এই শিল্প গোষ্ঠী।

বলা হয়, ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে টাটার প্রতিষ্ঠাতা জামশেদজি টাটাকে তার চেহারার কারণে বোম্বের একটি দামি হোটেলে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এই ঘটনা তার ওপর তীব্র প্রভাব ফেলেছিল। তিনি স্থির করেন এর চেয়ে অনেক ভালো একটি হোটেল তৈরি করবেন তিনি যেখানে প্রত্যেক ভারতীয়র আসা যাওয়ার অনুমতি থাকবে।

টাটা গোষ্ঠীর সাফল্যের রহস্য

টাটার অসাধারণ সাফল্য সম্পর্কে অর্থনৈতিক বিশ্লেষক শঙ্কর আইয়ার বলেন, ‘আম্বানি বা আদানির নাম (প্রকাশ্যে) আসে কারণ তাদের সংস্থাগুলো ব্যক্তিগত। টাটা বিভিন্ন সংস্থার একটি গোষ্ঠী এবং একটি ট্রাস্টের অধীনে পরিচালিত হয়। তাই এই সংস্থাকে নিয়ে সেভাবে আলোচনা করা হয় না।’

বর্তমানে হয়সাং ইন্ডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাগেশ তিলওয়ানি বিবিসিকে জানান ‘টাটার বৃদ্ধির প্রধান কারণ হলো এর নৈতিক, ন্যায়যুক্ত এবং স্বচ্ছ ব্যবস্থা যা কর্মীদের সঙ্গে একটি শক্তিশালী বন্ধন তৈরি করে।’তিলওয়ানির মতে, মূলধন বিনিয়োগের প্রতি টাটার একটি সুস্পষ্ট দৃষ্টি এবং কৌশল রয়েছে, যার উপযুক্ত উদাহরণ হলো স্টারবাকস, ক্রোমা কনসেপ্ট এবং জাগুয়ার ব্র্যান্ড ইত্যাদি কেনা।

টাটা পাওয়ারের নয়াদিল্লির প্রজেক্ট ম্যানেজার বিবেক নারায়ণ জানিয়েছেন, টাটার সাফল্যের গ্যারান্টি হলো এর বৈচিত্র্য। এই শিল্প গোষ্ঠী যে ক্ষেত্রেই কাজ করুক না কেন তারা ইতিবাচক পরিবেশ আনার চেষ্টা করে। বিবিসি বাংলা

 

মেসেঞ্জার/মুমু

dwl
×
Nagad