ঢাকা,  বৃহস্পতিবার
২৫ জুলাই ২০২৪

The Daily Messenger

ভারতে ফিরে এসেছে কুয়েতে অগ্নিকান্ডে নিহত ৪৫ জনের মৃতদেহ

মেসেঞ্জার অনলাইন

প্রকাশিত: ১৮:০৫, ১৪ জুন ২০২৪

ভারতে ফিরে এসেছে কুয়েতে অগ্নিকান্ডে নিহত ৪৫ জনের মৃতদেহ

ছবি : সংগৃহীত

কুয়েতের একটি ভবনে অগ্নিকান্ডে নিহত কয়েক ডজন অভিবাসী শ্রমিকের মৃতদেহ দেশে ফিরে আসার পর শুক্রবার (১৪ জুন) শোকার্ত পরিবারগুলোর দেখার জন্য একটি ভারতীয় বিমানবন্দরের টার্মিনালে মৃতদেহ রাখা হয়েছে। তেল সমৃদ্ধ উপসাগরীয় দেশটির অর্থনীতির পরিচর্যাকারী বিদেশী শ্রমিকদের একটি হাউজিং ব্লকের একটি ভবন বুধবার (১২ জুন) ভোরে আগুন গ্রাস করে।

এতে অগ্নিকান্ডে পঞ্চাশ জন মারা গেছে, তাদের মধ্যে ৪৫ জন ভারতীয়, আরও ডজনখানেক হাসপাতালে ভর্তি এবং ক্ষুব্ধ আত্মীয়েরা তাদের প্রিয়জন মারা গেছে কিনা তা নিয়ে উন্মত্তভাবে খবর নিতে দেশে ফিরেছে।

৩১ বছর বয়সী সিবিন আব্রাহামের প্রতিবেশী আনু আবি এএফপিকে বলেছেন, ‘আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত আশায় ছিলাম যে হয়তো সে বেরিয়ে গেছে, হয়তো সে হাসপাতালে আছে।’

আবি বলেছেন, আব্রাহাম তার সন্তানের প্রথম জন্মদিনে আগস্টে কেরালা রাজ্যে তার বাড়িতে ফিরে আসার কথা ছিল।
তিনি বলেন, আগুন লাগার মাত্র এক ঘন্টা আগে আব্রাহাম তার স্ত্রীর সাথে ফোনে কথা বলছিলেন। 

অন্যরা ভারতের দক্ষিণে কোচি বিমানবন্দরে একটি অপেক্ষমাণ এলাকায় বসেছিলেন, তাদের আত্মীয়দের দেহাবশেষ বহনকারী ভারতীয় বিমানবাহিনীর বিমানটি টার্মিনাল স্পর্শ করার সাথে সাথে তারা চোখের অশ্রু মুছেছিলেন। কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি মৃতদের পরিবারের জন্য একটি সীমাহীন ক্ষতি।’

তিনি বলেন,‘এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধ করার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া দরকার এবং আশা করা যায় যে কুয়েত সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’ কুয়েতের দমকল বিভাগের একটি সূত্র জানায়, ভবনটিতে প্রায় ২০০ জন মানুষ বাস করছিলেন এবং আগুনে আটকা পড়ার পর ধোঁয়ায় দমবন্ধ হয়ে অনেকে মারা যান, অনেক আহত ও দগ্ধ হন। 

পোড়ার কারণে অনেকের মৃতদেহ চেনা যায় না এবং এখন তাদের মৃতদেহ পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার আগে ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে শনাক্ত করা প্রয়োজন। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) উপসাগরীয় দেশটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নিরাপত্তা পদ্ধতি এবং অগ্নি বিধির অবহেলার মাধ্যমে হত্যাকান্ডের সন্দেহে একজন কুয়েতি এবং দুই বিদেশী বাসিন্দাকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার (১২ জুন) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ ফাহদ আল-ইউসেফ ‘শ্রমিকদের ভিড় এবং অবহেলা’ মোকাবেলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এবং নিরাপত্তা বিধি লঙ্ঘন করে এমন যে কোনও ভবন বন্ধ করার হুমকি দিয়েছেন।

মৃতদের মধ্যে তিনজন ফিলিপিনোও ছিল, দেশটির অভিবাসী শ্রমিকদের সেক্রেটারি হ্যান্স লিও জে. ক্যাড্যাক বলেছেন, কর্তৃপক্ষ তাদের প্রত্যাবর্তন প্রচেষ্টার আয়োজন করছে।

মেসেঞ্জার/তারেক