ঢাকা,  বৃহস্পতিবার
২৫ জুলাই ২০২৪

The Daily Messenger

লেবাননে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্ট খেলা হচ্ছে না বাংলাদেশের

মেসেঞ্জার অনলাইন

প্রকাশিত: ২০:১৩, ২৪ জুন ২০২৪

লেবাননে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্ট খেলা হচ্ছে না বাংলাদেশের

ছবি : সংগৃহীত

গত বছর ২৬ ২৯ অক্টোবর বৈরুতে লেবাননের বিপক্ষে নারী ফুটবল দলের দুটি ফিফা প্রীতি ম্যাচ খেলার কথা থাকলেও ওই অঞ্চলের রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে দল পাঠায়নি বাফুফে। ১০ মাস পর আবার সেই লেবাননে খেলার সুযোগ এসেছিল সাবিনাদের কিন্তু এবারও তাদের যাওয়া হচ্ছে না মধ্যেপ্রাচ্যের দেশটিতে।

প্রীতি ম্যাচ নয়, এবার চার জাতির একটি টুর্নামেন্টে আমন্ত্রণ পেয়েছিল বাংলাদেশ। লেবানন ফুটবল ফেডারেশন এই টুর্নামেন্টের জন্য বাংলাদেশ ছাড়াও আমন্ত্রণ জানিয়েছিল জর্ডান নেপালকে। বাংলাদেশের সিদ্ধান্ত ঝুলে ছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতামতের জন্য।

ইসরায়েল হামাসের মধ্যে চলমান যুদ্ধের কারণে ওই অঞ্চলের রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে নারী ফুটবল দলকে লেবাননে পাঠানোর বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতামত চেয়েছিল বাফুফে। রোববার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের পর্যবেক্ষণ জানিয়েছে।

দল পাঠানো যাবে কি যাবে না নির্দিষ্ট করে না বললেও মন্ত্রণালয় লেবাননের রাজনৈতিক অস্থিরতা প্রতিকূল পরিস্থিতির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছে বাফুফেকে। মন্ত্রণালয় থেকে নিরুৎসাহ মূলক চিঠি পাওয়ার পর বাফুফে লেবাননে নারী ফুটবল দল না পাঠানোর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বাফুফের নারী উইংয়ের চেয়ারপার্সন মাহফুজা আক্তার কিরণ বলেন,আমরা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে তাদের অনুমতি চেয়েছিলাম। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের পর্যবেক্ষণ জানিয়েছে। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি লেবাননে দল না পাঠানোর। সেখানকার পরিস্থিতি ভালো না।

তাছাড়া টুর্নামেন্ট বৈরুতেও না হবে অন্য এক শহরে। আমরা ঝুঁকি নিয়ে মেয়েদের সেখানে পাঠাতে পারি না। দেশটির পুরুষ ফুটবল দলকেই খেলতে হচ্ছে অন্য কোথাও গিয়ে।

আগামী অক্টোবরে নেপালে বসবে মেয়েদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের পরের আসর। শিরোপা ধরে রাখার চ্যালেঞ্জে বেশি বেশি ম্যাচ খেলার ওপর গুরুত্ব দিয়েছে বাফুফে। তার অংশ হিসেবে চাইনিজ তাইপের বিপক্ষে দুই ম্যাচ খেলানো হয়েছে মেয়েদের।

লেবাননে টুর্নামেন্ট খেলতে পারলে ভালোই প্রস্তুতি হতো। সফর বাতিল হওয়ায় নারী ফুটবল দলের প্রস্তুতি ম্যাচ নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে বাফুফেকে।

সাফের আগে প্রীতি ম্যাচ খেলবে কিনা জানতে চাইলে মাহফুজা আক্তার কিরণ বলেন, ‘আমরা তো ম্যাচ খেলানোর চেষ্টা করি। কিন্তু প্রতিপক্ষ পাওয়াই কঠিন।

তবে ম্যাচ আমরা খেলবো তা যে দলের বিপক্ষেই হোক। আমাদের চোখ ছিল অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী দলের বিপক্ষে ম্যাচ খেলা। এখন শক্তিশালী দল না পেলে কম শক্তির দল হলেও খেলতে হবে। আমরা এখন থেকেই যোগাযোগ শুরু করে দেবো।

মেসেঞ্জার/আপেল