ঢাকা,  মঙ্গলবার
১৮ জুন ২০২৪

The Daily Messenger

বেলজিয়াম সাংবাদিকের দৃষ্টিতে বঙ্গবন্ধু হত্যা, জিয়ার ভূমিকা

প্রকাশিত: ১৬:৩৪, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

আপডেট: ১৫:০৪, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

বেলজিয়াম সাংবাদিকের দৃষ্টিতে বঙ্গবন্ধু হত্যা, জিয়ার ভূমিকা

জেমস উইলসন নামের এক বেলজিয়াম নাগরিক, ইন্টারন্যাশনাল ফাউন্ডেশন ফর বেটার গভর্নেন্স নামক সাময়িকীতে বাংলাদেশে সংঘটিত ১৫ এবং ২১ আগস্ট হত্যাযজ্ঞের ওপর যা লিখেছেন, তার কিয়দাংশ বাংলায় অনুবাদ করে ছাপানো প্রয়োজন মনে করছি। জেমস উইলসন বেলজিয়ামের একজন নামজাদা সাংবাদিক ও রাজনৈতিক ভাষ্যকার।  তিনি লিখেছেন, ৪৮ বছর আগে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশের মানুষ দেখতে পেয়েছিলেন তাদের ইতিহাসের কৃষ্ণতম সকাল। সেই সকালে সে দেশের স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমান, যাকে বাংলাদেশের মানুষ শ্রদ্ধাভরে বঙ্গবন্ধু (বাংলার বন্ধু) বলে উল্লেখ করে থাকেন, তাকে পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ চরম পৈশাচিকভাবে হত্যা করা হয়। হত্যা করা হয়েছিল তার ১০ বছর বয়স্ক শিশুপুত্রকেও। তার দুই কন্যা বিদেশে ছিলেন বলে সেই গণহত্যা (carnage) থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন। খুনির দল মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ দেয়। তবে জিয়াউর রহমান ১৯৭৭ সালের এপ্রিল মাসে বেআইনিভাবে নিজেকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা দেন। সেই হত্যাযজ্ঞ সেখানেই শেষ হয়নি, পরবর্তীতে শেখ মুজিবের চারজন নিকটতম রাজনৈতিক সহকর্মীকে জেলখানার অভ্যন্তরে হত্যা করেছিল সে সময়ে বেআইনিভাবে প্রতিষ্ঠিত খুনিদের সরকার ১৯৭৫ সালের নভেম্বর মাসে।

শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা প্রাপ্তির মাধ্যমে, গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা, সমান অধিকার ও ন্যায়বিচারের যে আদর্শসমূহ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, শেখ মুজিবকে হত্যা করে তার সবগুলোকেই পাল্টে দেওয়া হয়েছিল। বস্তুত, বাংলাদেশের স্থপতিকে হত্যা করার পেছনে মূল উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং সার্বভৌমত্বকে হত্যা করা, যা শেখ মুজিব হত্যার মাত্র ৩ বছর ৮ মাস আগে অর্জিত হয়েছিল।

সাংবাদিক জেমস উইলসন আরও লিখেছেন, ৩০ লাখ শহীদ এবং ২ লাখ নির্যাতিত নারীর কঠিন আত্মত্যাগের মাধ্যমে যে স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছিল, জাতির পিতা হত্যার মাধ্যমে তাতে যবনিকাপাত ঘটিয়েছিল বেআইনিভাবে ক্ষমতার জবরদখলদাররা। বাংলা ভাষার সেই ‘জয় বাংলা’ স্লোগান (Victory of Bengal), যেটি ছিল মুক্তিযুদ্ধের মূল মন্ত্র, খুনি সরকাররা সেটিকে নিষিদ্ধ করে তার স্থলে পাকিস্তানি কায়দায় ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’-এর সূচনা করেছিল। বেআইনি সামরিক স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের ইতিহাসকে সম্পূর্ণ বিকৃত করে দেশ থেকে ধর্মনিরপেক্ষতার আদর্শকে ধ্বংস করার চেষ্টায় মেতে উঠেছিলেন। তিনি বাংলাদেশের স্বল্প শিক্ষিত, সরল মানুষের ধমনিতে ধর্মান্ধতার বিষ প্রবেশ করিয়ে দিয়েছিলেন, এই ধারণা নিয়ে যে সরলমনা মানুষগুলোর মস্তিষ্কে ধর্মীয় গোঁড়ামির বীজ ঢেলে দিতে পারলে, তা সফল হবে। তিনি লিখেছেন, সেই বেআইনি স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান পরবর্তীতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) নামক একটি রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করেন। এরপর জিয়ার নেতৃত্বে একটি পুতুল সংসদ গঠন করা হয়, জিয়া নিজেকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা দেন। জিয়ার তৈরি সেই ‘পুতুল’ পার্লামেন্ট জিয়ার নেতৃত্বে ১৯৭৫ সালের ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে আইনের মর্যাদা প্রদান করে ১৯৭৯ সালে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, তার আগে ২৩ বছরে জাতির পিতার নেতৃত্বে স্বাধিকার অর্জনের সংগ্রাম, সবকিছু ছাত্রদের পাঠ্যতালিকা থেকে মুছে ফেলা হয়। এমনকি শেখ মুজিবুর রহমানের নাম উচ্চারণ করার ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। সংবিধানে নিশ্চিত করা ধর্মনিরপেক্ষতার বিধান, যা ছিল বাংলাদেশের অন্যতম রাষ্ট্রীয় নীতিমালা, তাও সরিয়ে ফেলা হয়। জাতির পিতার বেঁচে যাওয়া দুই কন্যাকে ছয় বছর দেশে ফিরতে দেয়নি অবৈধ স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান। অবশেষে ১৯৮১ সালের মে মাসে জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সমস্ত ডর-ভয় উপেক্ষা করে বাংলাদেশে ফিরেছিলেন।

জিয়াউর রহমান জাতির পিতার স্ব-ঘোষিত হত্যাকারীদের শুধু বিচারের হাত থেকে রেহাই প্রদানই করেননি, তাদের পুরস্কৃত করেছিলেন লোভনীয় কূটনৈতিক পদে চাকরি প্রদান করে। জিয়া বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ও ধর্মনিরপেক্ষ তত্ত্বকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দিয়েছিলেন। তিনি পাকিস্তানের সঙ্গে বন্ধুত্ব জোরদার করতে মেতে উঠেছিলেন, অথচ পাকিস্তানের উপনিবেশিক শাসন থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্যই বাংলাদেশের মানুষ যুদ্ধ করেছিল। জিয়া ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধুত্ব খর্ব করার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন, যদিও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান ছিল অসামান্য। ভারত এমনকি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায়ে প্রত্যক্ষভাবে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে ত্বরান্বিত করেছিল। ১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর পরাজিত পাকিস্তানি সৈন্যরা বাংলাদেশ এবং ভারতের যৌথ কমান্ডের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিলেন।

জাতির পিতা ধর্মভিত্তিক রাজনীতি সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করেছিলেন। কিন্তু জিয়া সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে দিয়ে ধর্মান্ধদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দেন। জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করে দিয়ে ১১ হাজার স্বাধীনতাবিরোধীকে কারাগার থেকে মুক্তি দিয়েছিলেন। যেই কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযম, যিনি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে সরাসরি যোগসাজশের মাধ্যমে পাকিস্তানিদের দ্বারা বাঙালিদের ওপর চালিয়ে যাওয়া গণহত্যায় প্রত্যক্ষভাবে অংশ নিয়েছিলেন, জিয়া তার বাংলাদেশে প্রবেশের পথ উন্মুক্ত করে দিয়েছিলেন। গোলাম আযম ছাড়াও জিয়া আরও বহু যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতাবিরোধীদের বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দিয়েছিলেন। এসব যুদ্ধাপরাধীর অধিকাংশই ছিল জামায়াতে ইসলাম দলের নেতা-কর্মী, যেটি চরমপন্থি ধর্মান্ধ দল। জিয়াউর রহমান তার দলে ও সরকারে অগণিত স্বাধীনতাবিরোধীকে শীর্ষ স্থান দিয়েছিলেন। জিয়া সেই শাহ আজিজকে প্রধানমন্ত্রীর পদ দিয়েছিলেন, ১৯৭১ সালে যার অবস্থান ছিল মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের শীর্ষে। এভাবে তিনি বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক এবং ধর্মনিরপেক্ষ বিধানসমূহকে চূর্ণ-বিচূর্ণ করেছিলেন। আলি আহসান মুজাহিদসহ অন্যান্য জামায়াত নেতাকে মন্ত্রিসভায় গুরুত্বপূর্ণ স্থান দিয়ে জিয়ার স্ত্রী খালেদা জিয়া একই ধারা অনুসরণ করেছেন। সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী নামক আর এক জঘন্য যুদ্ধাপরাধীকেও মন্ত্রীর মর্যাদায় উপদেষ্টা নিয়োগ করে জিয়ার স্ত্রী, খালেদা জিয়া স্বামীর উত্তম অনুসারী হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করেছিলেন, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত জামায়াতের সঙ্গে যৌথভাবে চালিয়ে যাওয়া বছর অন্ধকারময় শাসনকালে। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সেই সরকারের সময় বিচারহীনতার সংস্কৃতির ও ধর্মীয় জঙ্গিবাদের ভয়াবহ উত্থান ঘটে। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বিএনপি-জামায়াত সরকারের শীর্ষ নেতাদের প্রত্যক্ষ নির্দেশে জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যা করার জন্য একটি ঘৃণ্য গ্রেনেড আক্রমণ চালানো হয়েছিল। শেখ মুজিব ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার বিচার শুরু করা ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পরই সম্ভব হয়েছিল। সে বছরই নভেম্বর মাসে আওয়ামী লীগ সদস্যদের সমন্বয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ/আইন রহিত করেছিলেন। সেই রহিতকরণ আইনের ওপর ভোট গ্রহণকালে বিএনপি-জামায়াতের সংসদ সদস্যরা সংসদে যোগদান থেকে বিরত ছিলেন। সেই হত্যার বিচার বহু আগে বিএনপি শাসন আমলেই হতে পারত, কিন্তু সেটি তারা করেননি বিধায় দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতা পাওয়ার পর বিচার শুরু হয়।

বিচারটি হয়েছিল দেশের প্রচলিত আইনে, প্রচলিত আদালতে। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া সমাপ্তির পর দেশের সর্বোচ্চ আদালত, অ্যাপিলেট ডিভিশন, ২০০৯ সালের নভেম্বর মাসে ১২ জন খুনির বিরুদ্ধে দেওয়া মৃত্যুদণ্ডাদেশ নিশ্চিত করে রায় প্রদান করেন। ১২ জনের মধ্যে পাঁচজনের দণ্ড কার্যকর করা সম্ভব হয়েছিল। সাতজন পলাতকের মধ্যে একজন জিম্বাবুয়েতে মারা গেছেন। আরেকজন পলাতক ২০২০ সালে ধরা পড়লে তার বিরুদ্ধে দণ্ডাদেশ ওই বছরে কার্যকর করা হয়। পলাতক পাঁচজনের মধ্যে রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে ও নূর চৌধুরী কানাডায় অবস্থান করছেন। বাংলাদেশ সরকারের পৌনঃপুনিক অনুরোধ সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা এদেরকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করছে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বহুবার প্রকাশ্যেই বলেছেন এসব দণ্ডপ্রাপ্ত, স্বঘোষিত খুনিদের যে দেশ আশ্রয় দেয়, তারা কি মানবাধিকারের কথা বলতে পারে? এখন সময় হয়েছে দেশ দুটিতে পলাতক দণ্ডপ্রাপ্তদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে দিয়ে প্রমাণ করা যে তারা সত্যি সত্যি মানবাধিকার ও আইনের শাসনে বিশ্বাস করে, নয়তো জগৎবাসী ভাববে এগুলো তাদের ফাঁকা বুলি বৈ কিছু না।

লেখক : আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি

টিডিএম/এএইচ

Advertisement